ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া-ঢাকা ট্রেনের সময়সূচি ২০২১

ট্রেনে ভ্রমণ করা অন্যান্য গণপরিবহণের চেয়ে আরামদায়ক এবং ঝামেলামুক্ত। তাই এদেশে ট্রেনভ্রমণ বেশ জনপ্রিয় ব্যাপার। আপনি যদি ট্রেনে ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া কিংবা ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ঢাকায় যেতে চান, তাহলে প্রথমে আপনার জেনে নেয়া প্রয়োজন ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া-ঢাকা ট্রেনের সময়সূচি ও টিকেটের দাম সম্পর্কে।

সম্প্রতি সারাদেশের ট্রেনের সময়সূচি হালনাগাদ করা হয়েছে, তারই অংশ হিসেবে ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ঢাকা ট্রেনের সময়সূচিও পরিমার্জিত হয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ের সর্বশেষ প্রজ্ঞাপন অনুসারে আমরা এখানে ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া-ঢাকা ট্রেনের সময়সূচি এবং টিকিটের মূল্য সম্পর্কে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য তুলে ধরছি।

আপনি ব্যবসায়িক প্রয়োজন, আনন্দ ভ্রমণ অথবা অন্য যে-কোনো উদ্দেশ্যেই ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কিংবা এর বিপরীতপথে ভ্রমণ করুন, এটি আপনার জন্যে স্বস্তিদায়ক যে, ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেল যোগাযোগ এখন আগের চেয়ে অনেক ভালো। কাজেই পথটা ট্রেনে পাড়ি দেবার সিদ্ধান্তটি একদম ঠিক আছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশন আসলে একটি খুব ব্যস্ত স্টেশন, কারণ এটি ঢাকা-সিলেট এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের মধ্যবর্তী একটি চতুর্মুখী কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে। দেশের এই দুই বৃহত্তম শহরের মধ্যে চলাচলকারী সমস্ত ট্রেন কিছুক্ষণের জন্যে এখানে থামে। এরই ফলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশন দেশের অন্যতম ব্যস্ত স্টেশন। কিন্তু এর ফলে সুবিধে হলো এই যে, আপনি ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া বা ব্রাহ্মণবাড়িয়া সফরে অনেকগুলি আন্তঃনগর এবং মেইল ট্রেন পাবেন। এখানে আমরা ঢাকা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মধ্যে চলাচলকারী প্রত্যেকটি ট্রেনের বিস্তারিত সময়সূচি এবং এগুলোর সকল শ্রেণির আসনের টিকিটের মূল্য আপনার সামনে পেশ করছি।

Brahmanbaria Railway Station, Dhaka to Brahmanbaria Rute—porzoton.com
ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন।

বিষয়সূচি

ঢাকা টু ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের তালিকা

বাংলাদেশের অন্যান্য অঞ্চলের মতো ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রুটে চলাচলকারী ট্রেনগুলোও দুই ধরণের:

  • আন্তঃনগর ট্রেন,
  • মেইল ট্রেন।

বর্তমানে মোট ৬টি আন্তঃনগর ট্রেন ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া রুটে চলাচল করে। এগুলো হলো:

১. মহানগর প্রভাতী,
২. মহানগর এক্সপ্রেস,
৩. তূর্ণা এক্সপ্রেস,
৪. উপকূল এক্সপ্রেস,
৫. পারাবত এক্সপ্রেস,
এবং
৬. জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস

অন্যদিকে, ৪টি মেইল ট্রেন রয়েছে ঢাকা-ময়মনসিংহ রুটে:

১. তিতাস কমিউটার,
২. চট্টলা এক্সপ্রেস,
৩. চট্টগ্রাম মেইল, এবং
৪. কর্ণফুলী এক্সপ্রেস।

উল্লেখ্য, সব ট্রেন প্রতিদিন কিন্তু চলে না। বরং বেশিরভাগেরই সাপ্তাহিক ছুটি থাকে। তাই আপনি আপনার গন্তব্যের উদ্দেশে রওনা হবার আগেই ঢাকা টু ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের সময়সূচি এগুলোর বন্ধের দিন সহ অবশ্যই জেনে নেবেন। যাতে আপনার ভ্রমণের পরিকল্পনায় কোনো ব্যত্যয় বা বিলম্ব না ঘটে। বাংলাদেশ রেলওয়ের সর্বশেষ পরিমার্জন অনুসারে আমরা এই ট্রেনের সময়সূচিটি তৈরি করেছি। কাজেই আপনি একে নির্ভরযোগ্য বলে ধরে নিতে পারেন।

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের সময়সূচি

আন্তঃনগর ট্রেন

মহানগর প্রভাতী:

মহানগর প্রভাতী দ্রুতগামী ট্রেন হিসেবে যাত্রীদের কাছে একটি জনপ্রিয় ট্রেন। এর ট্রেন কোড: ৭০৪। এটি সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে ঢাকা কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে রওনা হয় এবং সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছায়। মহানগর প্রভাতীর কোনও ছুটিছাটা নেই, ট্রেনটি সপ্তাহের ৭ দিনই চলে।


মহানগর এক্সপ্রেস:

মহানগর এক্সপ্রেস হলো ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া রুটের আরেকটি দ্রুতগামী আন্তঃনগর ট্রেন। এর কোড নম্বর হলো ৭২১। এটি দুপুর ১২টা ৩০ মিনিটে ঢাকা স্টেশন ছেড়ে যায় এবং বিকেল ৩টা ২৩ মিনিটে ব্রহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছায়। রোববার এই ট্রেনের ছুটির দিন।


তূর্ণা এক্সপ্রেস:

আপনি যদি রাতের বেলা ভ্রমণ করা পছন্দ করে থাকেন তাহলে আপনি তূর্ণা এক্সপ্রেসে উঠতে পারেন। ট্রেনটির কোড নম্বর ৭৪২। ঢাকা থেকে তূর্ণা ছাড়ে রাত ১১টায় এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছায় রাত ১টা ৩৪ মিনিটে। তূর্ণা এক্সপ্রেসেরও সাপ্তাহিক কোনো ছুটি নেই, সপ্তাহে ৭ দিনই এটি চলে।


উপকূল এক্সপ্রেস:

এটি একটি বৈকালিক ট্রেন। ঢাকা থেকে ছাড়ে বিকেল ৩টা ২০ মিনিটে এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছায় বিকেল ৫টায়। মঙ্গলবারে উপকূল এক্সপ্রেস বন্ধ থাকে।


পারাবত এক্সপ্রেস:

আপনি যদি খুব সকালবেলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছে যেতে চান তাহলে পারাবত এক্সপ্রেস আপনার আপনার জন্যে সবচেয়ে ভালো। কেননা এটা ভোর ৬টা ২০ মিনিটে ছেড়ে যাবে এবং সকাল ৮টা ১৬ মিনিটে আপনাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছে দেবে। ট্রেনটির নম্বর ৭০৯। মঙ্গলবার হলো এর সাপ্তাহিক বন্ধের দিন।.


জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস:

জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস একটি মধ্যদিনের ট্রেন। দুপুর ১২টায় রওনা হয় ঢাকা থেকে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছায় দুপুর ২টা ১২ মিনিটে। ট্রেন নম্বর ৭১৭। এটি সপ্তাহে ৭ দিনই চলে, কোনো বন্ধটন্ধ নেই।

Dhaka to Brahmanbaria Train Schedule 2021 and ticket prices
ঢাকা টু ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের সময়সূচি-২০২১।

ঢাকা টু ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেন শিডিউল-২০২১

মেইল ট্রেন

তিতাস কমিউটার:

এই মেইল ট্রেনের কোড হলো ৩৬। ঢাকা থেকে ছাড়ে দুপুর ২টা ৪০ মিনিটে, বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটে পৌঁছায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। এটি সপ্তাহে ৭ দিনই চলে, কোনও ছুটি নেই।.


চট্টলা এক্সপ্রেস:

৬৮ কোড নম্বরধারী এই মেইল ট্রেনটি ঢাকা থেকে দুপুর ১টায় ছেড়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে পৌঁছায় বিকেল ৩টা ২২ মিনিটে। মঙ্গলবার হলো ট্রেনটির বন্ধের দিন।


চিটাগাং মেইল:

এই মেইল ট্রেনটির কোড নম্বর ২। এটি ঢাকা থেকে রাত ১০টা ৩০ মিনিটে ছেড়ে যায় এবং ভোর ৪টা ৩০ মিনিটে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছায়। এটিও সপ্তাহের ৭ দিনই চলে, কোনো বন্ধ নেই।.


কর্ণফুলী এক্সপ্রেস:

সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে ঢাকা থেকে রওনা হয়ে দুপুর ১২টা ৩০ মিনিটে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌঁছায় কর্ণফুলী এক্সপ্রেস। ধীরগতির এই ট্রেনের কোড নম্বর ৪। এটাও সপ্তাহের ৭ দিনই চলে।

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সব ট্রেনের সময়সূচি

ট্রেনের নামপ্রস্থানআগমনবন্ধ
৭০৪ - মহানগর প্রভাতীসকাল ০৭:৪৫সকাল ০৯:৪৫নেই
৭২১ - মহানগর এক্সপ্রেসদুপুর ১২:৩০বিকেল ০৩:২৩রবি
৭৪২ - তূর্ণা এক্সপ্রেসরাত ১১:০০রাত ০১:৩৪নেই
৭১২ - উপকূল এক্সপ্রেসবিকেল ০৩:২০বিকেল ০৫:০২মঙ্গল
৭০৯ - পারাবত এক্সপ্রেসসকাল ০৬:২০সকাল ০৮:১৬মঙ্গল
৭১৭ - জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসদুপুর ১২:০০দুপুর ০২:১২নেই
৩৬ - তিতাস কমিউটারদুপুর ০২:৪০বিকেল ০৫:৪০নেই
৬৮ - চট্টলা এক্সপ্রেসদুপুর ০১:০০বিকেল ০৩:২২মঙ্গলবার
২ - চিটাগাং মেইলরাত ১০:৩০ভোর ০৪:৩০নেই
৪ - কর্ণফুলী এক্সপ্রেসসকাল ০৮:৩০রাত ১২:৩০নেই

ব্রাহ্মণবাড়িয়া টু ঢাকা ট্রেনের তালিকা

এবার ফিরতি যাত্রা প্রসঙ্গ, মানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ঢাকা। এই রুটে পুরো ১ ডজোন ট্রেন চলে। ৬টি আন্তঃনগর ও ৬টি মেইল ট্রেন। নিচে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-ঢাকা রুটে চলাচলকারী আন্তঃনগর ও মেইল ট্রেনের একটি তালিকা দেযা হলো।

আন্তঃনগর ট্রেন:

মেইল ট্রেন:

  • ঢাকা মেইল,
  • কর্ণফুলি এক্সপ্রেস,
  • সুরমা মেইল,
  • ঢাকা এক্সপ্রেস,
  • তিতাস কমিউটার, এবং
  • চট্টলা এক্সপ্রেস।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ঢাকা সকল ট্রেনের সময়সূচি

আমরা ইতোপূর্বে ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রুটের ১০টি ট্রেনের পরিচিতি ও সময়সূচি উল্লেখ করেছি। কিন্তু এর বিপরীত রুটে, অর্থাৎ আপনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ঢাকায় যেতে চাইলে আন্তঃনগর এবং মেইল সব মিলিয়ে মোট ১৩টি ট্রেন পাবেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ঢাকা ট্রেনের পূর্ণ সময়সূচি নিচের সারণিতে দেখানো হলো:

ট্রেনের নামপ্রস্থানআগমনবন্ধ
৭০৩ - মহানগর গোধূলি সন্ধ্যে ০৭:২৫রাত ০৯:২৫নেই
৭১০ - পারাবত এক্সপ্রেসরাত ০৮:৩৪রাত ১০:৪০মঙ্গল
৭১১ - উপকূল এক্সপ্রেসসকাল ০৯:৩৩সকাল ১১:৪৫বুধ
৭১৮ - জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসবিকেল ০৪:২৩সন্ধ্যে ০৬:২৫বৃহঃ
৭২১ - মহানগর এক্সপ্রেসবিকেল ০৪:৪২সন্ধ্যে ০৭:১০রবি
৭৪১ - তূর্ণা এক্সপ্রেসরাত ০৩:০৬ভোর ০৫:১৫নেই
১ - ঢাকা মেইলরাত ০৩:৪৪সকাল ০৭:২০নেই
৩ - কর্ণফুলি এক্সপ্রেসবিকেল ০৩:৪২সন্ধ্যে ০৭:৪০নেই
১০ - সুরমা মেইলরাত ০৪:০৩সকাল ০৯:১৫নেই
১১ - ঢাকা এক্সপ্রেসরাত ০১:০৪রাত ০৪:২৫নেই
৩৩ - তিতাস কমিউটারভোর ০৫:৪০সকাল ০৮:৪৫নেই
৩৫ - তিতাস কমিউটারদুপুর ১২:৪৫বিকেল ০৩:২০নেই
৬৭ - চট্টলা এক্সপ্রেসদুপুর ০১:২৮বিকেল ০৩:৫০মঙ্গল

ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া / ব্রাহ্মণবাড়িয়া-ঢাকা ট্রেনের টিকেট মূল্য

এবার ট্রেন টিকেট প্রসঙ্গ। আপনি তো জানেনই যে, বাংলাদেশে মূলত দুই ধরণের ট্রেন চলছে। লক্ষ করবার বিষয় হলো, আন্তঃনগর এবং মেইল দুই ধরণের ট্রেনের ভাড়া কিন্তু একই। পার্থক্য হলো, একেবারে সস্তা শ্রেণীর আসনও আছে মেইল ট্রেনে, কিন্তু আন্তঃনগরে মাঝামাঝি থেকে বিলাসবহুল পর্যন্ত আসনগুলি উপলভ্য। সব মিলিয়ে ১১টি ক্যাটেগরির আসন। কিন্তু আন্তঃনগর ট্রেনে মাঝখানের ‘শোভন’ থেকে শুরু, কোনো কোনো ট্রেনে আবার আসন শুরু ‘শোভন চেয়ার’ থেকে। ট্রেনের টিকেট বুক করার সময় আপনি আপনার বাজেট এবং পছন্দ অনুসারে যে-কোনো মানের আসন বেছে নিতে পারেন। সকল শ্রেণীর জন্যে ঢাকা টু ব্রাহ্মণবাড়িয়া / ব্রাহ্মণবাড়িয়া টু ঢাকা ট্রেনের টিকেট মূল্য নিচের সারণীতে দেখানো।

ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া / ব্রাহ্মণবাড়িয়া-ঢাকা ট্রেনের টিকেটের মূল্য তালিকা

আসনের শ্রেণীটিকেটের মূল্য
২য় শ্রেণী সাধারণ৪০ টাকা
২য় শ্রেণী মেইল৫০ টাকা
কমিউটার৬০ টাকা
সুলভ৭৫ টাকা
শোভন১২০ টাকা
শোভন চেয়ার১৪৫ টাকা
১ম শ্রেণী চেয়ার১৯০ টাকা
স্নিগ্ধা২৭৬ টাকা
১ম শ্রেণী কেবিন২৮৫ টাকা
এসি সিট৩২৮ টাকা
এসি কেবিন৪৮৯ টাকা
Dhaka to Brahmanbaria to Dhaka Train Ticket Price—porzoton.com
ব্রাহ্মণবাড়িয়া টু ঢাকা ট্রেন মহানগর এক্সপ্রেসের একটি টিকেট।

ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেন তিস্তা এক্সপ্রেস (ভিডিও)

শুভযাত্রা! 🌺

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ঢাকা ট্রেনের সময়সূচি ও টিকেটের মূল্য সম্পর্কে আমাদের হাতে তথ্য ছিল এ পর্যন্তই, যা আমরা বাংলাদেশ রেলওয়ের সঙ্গে মিলিয়ে হালনাগাদ করলাম আজ ২০শে ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখে। তবু বলাবাহুল্য, রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ যে-কোনো সময় তাদের ট্রেন শিডিউল ও টিকেট প্রাইসে যে-কোনো ধরণের পরিবর্তন আনতে পারে। তেমনটি ঘটলে সঙ্গে সঙ্গে আমরাও ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া-ঢাকা ট্রেনের সময়সূচি ও ভাড়া সংক্রান্ত এই লেখাটি পরিমার্জন করে নেব। অনুগ্রহপূর্বক মন্তব্যের ঘরে আপনার মন্তব্যটি রেখে যান। পর্যটন ডটকমের সাথে এতক্ষণ সময় কাটানোর জন্যে আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

আপনার যাত্রা আনন্দময় হোক!

পর্যটন একটি বাংলাদেশি ভ্রমণ ওয়েবসাইট। এর কাজ হলো পর্যটককে পথ দেখানো। প্রথমে বাংলাদেশ, ক্রমশ এশিয়া এবং তারপর সারা দুনিয়ার সুন্দর সুন্দর পর্যটনকেন্দ্রগুলির তথ্য ও ছবি এক জায়গায় জড়ো করে আমরা গড়ে তুলতে চাই একটি ভ্রমণ বিশ্বকোষ—ট্যুরপিডিয়া, যেন নিসর্গ আর ইতিহাসের টানে গৃহত্যাগী মানুষেরা এ থেকে পান পথনির্দেশ, আর ঘুরকুনো কুঁড়েরা কুড়িয়ে নিতে পারে বেরিয়ে পড়বার জন্যে একমুঠো উৎসাহ। আপনার ঘরের কাছেই হয়তো অবহেলায় অগোচরে পড়ে আছে ঘুরে দেখার মতো চমৎকার কোনো জায়গা কিংবা ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে রয়েছে শত শত বছরের পুরনো কোনো মসজিদ, আপনি কি তার কথা আমাদেরকে জানাবেন যাতে আমরা সেটা দুনিয়ার সামনে তুলে ধরতে পারি?

Was this article helpful?
YesNo

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Scroll to Top